প্রেমিক-যুগলের ভাইরাল হওয়া ছবি নিয়ে যা বললেন সেই ফটো সাংবাদিক

গত কয়েকদিনের গরমে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছিল রাজধানী ঢাকাসহ দেশবাসী। রোদে পথে বের হওয়াই যেন দুষ্কর হয়ে  উঠেছিল। তবে গতকাল সোমবার কাকডাকা ভোর থেকেই আকাশ ছিল গোমড়ামুখো।

কোথাও কোথাও থেমে থেমে টিপটিপ বৃষ্টি হচ্ছিল। তবে সকাল আনুমানিক সাড়ে ১১টার পর আকাশ ভেঙ্গে বৃষ্টি নামল, একেবারে পল্লীবর্ষা টাইপ।  সকাল গড়িয়ে বিকাল হলেও ঝুম বৃষ্টি যেন থামছিলই না।

বৃষ্টিভেজা এমন দিনে বিকালের দিকে ফটো সাংবাদিক জীবন আহমেদ তার ফেসবুক আইডিতে একটি ছবি পোষ্ট দিলেন। সঙ্গে ক্যাপশন দিলেন, “বর্ষামঙ্গল কাব্য… ভালোবাসা হোক উন্মুক্ত।”

তারপর ইতিহাস! ছবিটা বৃষ্টির পানির মতো উপচে পড়তে থাকে ফেসবুকের হোমপেজে। জীবন আহমেদের আইডি থেকে পোস্ট দেওয়া ছবিতেই একদিন না পেরুতেই ১১ হাজারের উপরে লাইক। প্রায় চার হাজার শেয়ারের পাশাপাশি দেড় হাজার কমেন্ট।

হাজার হাজার মানুষ ছবিটি ডাউনলোড করে পোস্ট দেন নিজ নিজ আইডি থেকে। আসলে কি ছিল সেই ছবি, যেটি একদিনেই রীতিমত সরগরম করে তুলেছে ফেসবুক।

ঘটনাটি সোমবার দুপুরের। চলছে ঝুম বৃষ্টি। ছাতা মাথায় কিংবা রিক্সার হুড নামিয়ে সবাই বৃষ্টি উপভোগ করছে। এমন সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির বাইরে বসা এক প্রেমিক জুটি চোখে পড়লো ফটো সাংবাদিক জীবন আহমেদের।

আকাশী-সাদা পোশাক পরা এক জুটি বৃষ্টিতে ভিজছেন। বৃষ্টির দিনে খুব স্বাভাবিক দৃশ্য এটি। তারপরও চোখ আটকে যায় তার। কারণ, টিএসসির সামনে বৃষ্টির মুহূর্তে এক যুগলের উষ্ণ চুম্বন। কতটা শান্ত-স্নিগ্ধ-সুন্দর।

লেন্স বাগিয়ে ছবি তুললেন। পোস্ট করলেন নিজের ফেসবুক ওয়ালে। এরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায় ছবিটি। অনেকে একে ইতিবাচকভাবে প্রচার করেছেন। আবার কেউ কেউ এটাকে নেতিবাচকভাবে নিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জীবন আহমেদ বলেন, গতকাল অফিসের অ্যাসাইনমেন্ট ছিল বৃষ্টির ছবি তোলার। তাই ক্যামেরার লেন্স তাক করে ঘুরছিলাম। হঠাত টিএসসি এলাকার ওই দৃশ্যটি ক্যামেরাবন্দি করে ফেলি।

তিনি বলেন, “কে কীভাবে নিলো সেটা তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার। প্রত্যেকের ব্যক্তিগত মতামত থাকতেই পারে। যেকোনো ছবির ভালো খারাপ দুটি দিকই থাকে। যে যেভাবে গ্রহণ করে। তবে এই ছবি বেশির ভাগ মানুষই ভালোভাবে গ্রহণ করেছে, এবং নির্মল ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ হিসেবেই দেখছে।”

ফটো সাংবাদিক আরও বলেন, প্রকাশ্য ভালোবাসায় নোংরামি থাকতে পারে না। ছবিটা দেখলে খেয়াল করবেন, তাদের শরীরী ভাষায় শুধুই ভালোবাসা এবং তাদের সততার বিষয়টাও স্পষ্ট। ‘ভালোবাসা বিশুদ্ধ এবং প্রকাশ্যই হওয়া উচিৎ বলে আমি মনে করি।

উল্লেখ্য, পূর্ব-পশ্চিম নামে একটি নিউজ পোর্টালের ফটো সাংবাদিক হিসেবে কাজ করছেন জীবন আহমেদ। তিনি এর আগেও বেশ কিছু আলোচিত ছবি তুলেছেন। অভিজিৎ রায়ের রক্তাক্ত ছবিসহ সম্প্রতি কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকের সামনে আঙ্গুল নাচিয়ে হুমকি দেওয়ার ছবিও জীবন আহমেদের তোলা।

READ  আইএস’ নেতা পেয়েছে ‘বাংলাদেশে

Leave a Reply

%d bloggers like this: