অবাক হলেও সত্য, সাপের সিটি স্ক্যানের মতো ঘটনা প্রথমবার ঘটলো ভারতে! দীর্ঘ ৮ ফুট লম্বা একটি আহত অজগরের সিটি স্ক্যান করা হলো ভুবনেশ্বরের এক বেসরকারি হাসপাতালে। স্নেক হেলপলাইন নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে সিটি স্ক্যান করা হয়।
 
কম্পিউটেড টমোগ্রাফি স্ক্যানকে সংক্ষেপে সিটি স্ক্যান বলা হয়। এটি এক প্রকার এক্স-রে। ক্যান্সার বা টিউমার নির্ণয়, মস্তিষ্কের রোগ বা মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ, হৃদযন্ত্রের কোনো রোগসহ নানা ধরনের রোগ শনাক্তকরণে সিটি স্ক্যান করা হয়ে থাকে।
 
জানা গেছে, ৪ দিন আগে আহত অজগরটিকে উদ্ধার করা হয় ভুবনেশ্বর থেকে ১৩০ কিলোমিটার দূরে কেওনঝড় জেলার আনন্দপুর এলাকা থেকে। চিকিৎসার জন্য সেটিকে প্রথমে ওড়িশা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপালন বিভাগের স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যান স্নেক হেলপলাইনের সদস্যরা। 
বার্মিজ অজগরটির জখম সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চিকিৎসকরা প্রথমে এক্স-রে করেন কিন্তু খুব বেশি কিছু জানতে পারেননি। এরপর সিদ্ধান্ত হয় সিটি স্ক্যানের। ভারতে অজগরের সিটি স্ক্যানের ক্ষেত্রে এটি প্রথম ঘটনা।
 
সরকারি হাসপাতালে অজগরের সিটি স্ক্যান করানোর কোনো নিয়ম না থাকায় তারা বাধ্য হন বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যেতে। প্রথমে রাজি না হলেও অনেকে বোঝানোর পর শেষ পর্যন্ত অজগরের সিটি স্ক্যানের জন্য রাজি করা হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। সিটি স্ক্যান থেকে জানা যায়, মাথাসহ শরীরের ভেতরে বেশ কিছু জায়গায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে অজগরটি। এনডিটিভি

 
 
অবাক হলেও সত্য, সাপের সিটি স্ক্যানের মতো ঘটনা প্রথমবার ঘটলো ভারতে! দীর্ঘ ৮ ফুট লম্বা একটি আহত অজগরের সিটি স্ক্যান করা হলো ভুবনেশ্বরের এক বেসরকারি হাসপাতালে। স্নেক হেলপলাইন নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে সিটি স্ক্যান করা হয়।
 
কম্পিউটেড টমোগ্রাফি স্ক্যানকে সংক্ষেপে সিটি স্ক্যান বলা হয়। এটি এক প্রকার এক্স-রে। ক্যান্সার বা টিউমার নির্ণয়, মস্তিষ্কের রোগ বা মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ, হৃদযন্ত্রের কোনো রোগসহ নানা ধরনের রোগ শনাক্তকরণে সিটি স্ক্যান করা হয়ে থাকে।
 
জানা গেছে, ৪ দিন আগে আহত অজগরটিকে উদ্ধার করা হয় ভুবনেশ্বর থেকে ১৩০ কিলোমিটার দূরে কেওনঝড় জেলার আনন্দপুর এলাকা থেকে। চিকিৎসার জন্য সেটিকে প্রথমে ওড়িশা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপালন বিভাগের স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যান স্নেক হেলপলাইনের সদস্যরা। 
বার্মিজ অজগরটির জখম সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চিকিৎসকরা প্রথমে এক্স-রে করেন কিন্তু খুব বেশি কিছু জানতে পারেননি। এরপর সিদ্ধান্ত হয় সিটি স্ক্যানের। ভারতে অজগরের সিটি স্ক্যানের ক্ষেত্রে এটি প্রথম ঘটনা।
 
সরকারি হাসপাতালে অজগরের সিটি স্ক্যান করানোর কোনো নিয়ম না থাকায় তারা বাধ্য হন বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যেতে। প্রথমে রাজি না হলেও অনেকে বোঝানোর পর শেষ পর্যন্ত অজগরের সিটি স্ক্যানের জন্য রাজি করা হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। সিটি স্ক্যান থেকে জানা যায়, মাথাসহ শরীরের ভেতরে বেশ কিছু জায়গায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে অজগরটি। এনডিটিভি

© Copyright 2014-2018, All Rights Reserved ||| Powered By AnyNews24.Com || Developer By Abir-Group

%d bloggers like this:
www.scriptsell.net