এবার হেডফোন বিস্ফোরণ, ফ্লাইটে আতংক

অস্ট্রেলিয়ার একটি ফ্লাইটে এক নারীর হেডফোনে আগুন ধরে যাওয়ার পর ব্যাটারিচালিত ডিভাইস ব্যবহারের উপর সতর্কবার্তা জারি করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

বেইজিং থেকে মেলবোর্নগামী ফ্লাইটে বিস্ফোরণের শব্দে ওই নারী ঘুম থেকে জেগে উঠেন। পরে হেডফোনে স্পার্কের শব্দ শুনে তিনি দ্রুত হেডফোন খুলে ফেলেন। তিনি দেখতে পান আগুন ধরে হেডফোন গলে গেছে। বিস্ফোরণে আগুন লেগে তার মুখ কালো হয়ে যায় এবং হাতেও ফোস্কা পড়ে গেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

অজ্ঞাতনামা ওই যাত্রী অস্ট্রেলিয়ান ট্রান্সপোর্ট সেইফটি বুরো (এটিএসবি)-কে জানান, বিস্ফোরণের সময় তিনি গান শুনছিলেন।

“আমি দ্রুত আমার মুখ ঢেকে ফেলেছিলাম, কারণ হেডফোন আমার ঘাড়ে জড়ানো ছিল। আমি টের পাচ্ছিলাম যে আমার ত্বক পুড়ে যাচ্ছে। তাই হেডফোন টেনে আমি মেঝেতে ফেলে দিয়েছিলাম। হেডফোনে স্পার্ক হচ্ছিল এবং আগুন ধরে গিয়েছিল।”

ফ্লাইটের ক্রু আর অন্য সদস্যরা দ্রুত সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসে এবং পানি ঢেলে আগুন নেভায়। ওই সময়ের মধ্যেই ব্যাটারি আর প্লাস্টিক কভার গলে মেঝেতে আটকে যায়।

“ফ্লাইটের অন্য যাত্রীরা প্লাস্টিক গলা ঘ্রাণের সঙ্গে পোড়া ইলেকট্রনিক্স আর চুল পোড়া গন্ধও পাচ্ছিলেন,” এটিএসবি-এর প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

প্রতিবেদনে হেডফোনের ব্র্যান্ডের নাম প্রকাশ করা হয়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির জন্য এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে লিথিয়াম ব্যাটারিতে আগুন লেগে বেশ কয়েকটি ফ্লাইটে একইরকম দুর্ঘটনা ঘটেছে।

এবার হেডফোন বিস্ফোরণ, ফ্লাইটে আতংক

অস্ট্রেলিয়ার একটি ফ্লাইটে এক নারীর হেডফোনে আগুন ধরে যাওয়ার পর ব্যাটারিচালিত ডিভাইস ব্যবহারের উপর সতর্কবার্তা জারি করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

বেইজিং থেকে মেলবোর্নগামী ফ্লাইটে বিস্ফোরণের শব্দে ওই নারী ঘুম থেকে জেগে উঠেন। পরে হেডফোনে স্পার্কের শব্দ শুনে তিনি দ্রুত হেডফোন খুলে ফেলেন। তিনি দেখতে পান আগুন ধরে হেডফোন গলে গেছে। বিস্ফোরণে আগুন লেগে তার মুখ কালো হয়ে যায় এবং হাতেও ফোস্কা পড়ে গেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

অজ্ঞাতনামা ওই যাত্রী অস্ট্রেলিয়ান ট্রান্সপোর্ট সেইফটি বুরো (এটিএসবি)-কে জানান, বিস্ফোরণের সময় তিনি গান শুনছিলেন।

“আমি দ্রুত আমার মুখ ঢেকে ফেলেছিলাম, কারণ হেডফোন আমার ঘাড়ে জড়ানো ছিল। আমি টের পাচ্ছিলাম যে আমার ত্বক পুড়ে যাচ্ছে। তাই হেডফোন টেনে আমি মেঝেতে ফেলে দিয়েছিলাম। হেডফোনে স্পার্ক হচ্ছিল এবং আগুন ধরে গিয়েছিল।”

ফ্লাইটের ক্রু আর অন্য সদস্যরা দ্রুত সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসে এবং পানি ঢেলে আগুন নেভায়। ওই সময়ের মধ্যেই ব্যাটারি আর প্লাস্টিক কভার গলে মেঝেতে আটকে যায়।

“ফ্লাইটের অন্য যাত্রীরা প্লাস্টিক গলা ঘ্রাণের সঙ্গে পোড়া ইলেকট্রনিক্স আর চুল পোড়া গন্ধও পাচ্ছিলেন,” এটিএসবি-এর প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

প্রতিবেদনে হেডফোনের ব্র্যান্ডের নাম প্রকাশ করা হয়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির জন্য এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে লিথিয়াম ব্যাটারিতে আগুন লেগে বেশ কয়েকটি ফ্লাইটে একইরকম দুর্ঘটনা ঘটেছে।

© Copyright 2014-2018, All Rights Reserved ||| Powered By AnyNews24.Com || Developer By Abir-Group

%d bloggers like this:
www.scriptsell.net